অতীত অতীতই; হয়তো তাড়িয়ে বেড়ায় নয়তো প্রেরণা যোগায়!

0

রাইজিং ডেস্ক||

পরীক্ষায় ফেল করে যে ছেলেটা গায়ে কেরোসিন ঢেলে নিজেকে পুড়িয়ে ফেলতে চেয়েছিলো, সেই ছেলেটাই এখন সকাল সন্ধ্যা ফায়ার সার্ভিস এ চাকরি করছে।

এসএসসি তে গোল্ডেন না পেয়ে যে ছেলেটা পরিবার ও আত্নীয়-স্বজনদের নাক ছিটকানোর ভয়ে সুইসাইড করতে গিয়েছিলো। সেই ছেলেটাই আজ নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে সুইসাইডের বিরুদ্ধে কথা বলছে!

ভালোবাসার মানুষটাকে না পেয়ে, ফ্যানের সাথে উড়না পেঁছিয়ে মরতে চেয়েছিলো যে মেয়েটি, সে এখন নারীবাদী হয়ে নারীদের অধিকার আদায়ের জন্য সংগ্রাম করে যাচ্ছে!

প্রিয় মানুষটার জন্য হাত কেটে শরীর থেকে রক্তক্ষরণ করা ছেলেটা আজ ব্লাড ডোনেশন গ্রুপ খুলে বসে আছে। শত শত রোগীর জন্য ব্লাড ম্যানেজ করে দিবে বলে।

জগতের বাস্তবতা এটাই, সময়ের আবেগ অসময়ে বেগ হারিয়ে ফেলে।এক সময় যেই আবেগটাই ছিলো সবচেয়ে দামী, একটু হাসি কিংবা চোখ থেকে নিসৃত জলের জন্য দায়ী, সেটাই আজ মূল্যহীন হয়ে যায়। মনে হয় কি হাস্যকরই না ছিলো জীবনটা, কি রঙ্গীনই ছিলো সেই দিন গুলো!

শৈশবে ইচ্ছে ছিলো বড় হয়ে চানাচুর ওয়ালা হবো তাহলে ইচ্ছে মতো চানাচুর খেতে পারবো। আহ! কি অমৃত স্বাধ। ধনিয়া পাতার সাথে খাটি সরিষার তৈল আর কৌটাতে নিয়ে বামহাতের তালুতে ঝাঁকানো চানাচুরওয়ালার তৈরি সেই চানাচুর।

ঠিক দু’দিন পরেই সেই ইচ্ছাটা বদলে যেত আইসক্রীম ওয়ালা কিংবা তিলের খাজা বিক্রি করা ছেলেটাকে দেখে। কিন্তু সেই চানাচুর কিংবা আইসক্রিম ওয়ালাকে দেখে হৃদয়ের মাঝে পোষা ইচ্ছাগুলো এখন কোথায় কে জানে?

বাল্যকালে একজনকে খুব ভালোবাসতে চেয়েছিলাম। তারুন্যে এসে প্রেম হয়েছিলো ও বটে।তাকে নিয়ে স্বপ্ন বুনে ছিলাম কত যত্নে। অথচ হয়ে গেলো ঠিক উল্টোটা! সে আজ ছয় সন্তানের জননী আর আমি আজো বাবা’র মুখে বাবু ডাক শুনি!

তারপরে যুবক বয়সে এসে একজনকে ভালোবেসে বিয়ে করবো বলে কথা দিয়ে বিয়ে করতে পারলাম না। প্রথম ভালোবাসার কাছে প্রতারিত হয়ে দ্বিতীয় ভালোবাসা হারিয়ে ফেললাম।অপরাধী হলেও আপসোস হয়না কেন জানি!

কিন্তু আজ একমুঠো অন্ন আর বস্ত্রের মতো মৌলিক প্রয়োজন গুলো ছাড়া কাউকে ভালোবাসতে ইচ্ছে করেনা। কারো পাগলামীর গল্প শুনলে হাসি পায়, মনের অজান্তেই বলে ফেলি “বয়স কম, একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে।”

নদীর স্রোত বয়ে যায়, ঘড়ির কাটা টিক টিক করে চলে সময় কেটে যায়; সবকিছু ঠিক হয়ে যায় সময়ের মতো করে।আজকের দিনটাই রাত পোহালে গতকাল হয়ে যায়, হয়ে যায় অতীত। হারিয়ে যায় নির্দিষ্ট সময় থেকে কিছু সময়।

ঠিক তখন কোন একদিন সেই অতীত খন্ডনে বসলে মনে হয় ওটা ভুল ছিলো।সেটা ছিলো মজার, ভাবা যায় কী পাগলটাই না ছিলাম।বড় বোকামী হয়ে গেছিলো সেদিন। বড় ভুল করে ফেলেছি সেদিন গুলোয়।

এভাবেই একদিন জীবনের সব লেনদেন চুকিয়ে যাবে। অতীতের কথা মনে করলে সেদিন আর কষ্ট হবে না। হাস্যকর মনে হবে না, পুরোনো আবেগ গুলো, পুরোনো স্বপ্ন গুলো ,পুরোনো ভালোবাসা গুলো!

 

~লেখক- Saifulläh Amïn

 

Comments

comments