{{theTime}} |   Wed 17 Jan 2018

বেলুনের বিজ্ঞাপন নাকি এবিউজিং

প্রকাশঃ শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৭    ১৭:২০
সংগৃহীত
সংগৃহীত
ওয়াহিদা সুলতানা লাকি

মুক্তমত:

দেশী এবং বিদেশী টিভি চ্যানেলগুলোতে নানা রকম অশ্লীল দৃশ্য ধারণ সমেত মিউজিক ভিডিও, মুভ্যি যেটাই দেখি না কেনো বিজ্ঞাপন চিত্র প্রসঙ্গে যদি আসি তাহলে কিছু কিছু বিজ্ঞাপন কতোটা প্রচার যোগ্য বা হজম যোগ্য বলে আপনি মনে করেন?

কোন মুভ্যিতে এই জাতীয় দৃশ্যায়ন থাকলে তা যেমন আগে ভাগে আন্দাজ করে নিজ দায়িত্বে দেখা যায় কিন্তু আপনি যখন স্বপরিবারে বসে ভালো কোন প্রোগ্রাম দেখছেন আর তার ফাঁকে একটি "কনডমের" বিজ্ঞাপন চলে এলে পরিবারের ছোট বড় সবার মাঝে বসে আপনি বিচলিত হয়ে পড়েননি এমন মানুষ একজনও খুঁজে পাওয়া যাবে কি না সন্দেহ আছে। এটাকে আপনি কতোটা যৌক্তিক বলে মনে করেন?

হ্যাঁ, এখন প্রশ্ন তুলতে পারেন পন্য থাকলে তার বিজ্ঞাপনও থাকবে।কিন্তু আমিও যদি বলি, মানুষ যেহেতু যৌন উত্তেজনা বা কর্ম থাকবেই।তাই বলে আপনি তো নিশ্চয়ই বিবাহিত হলে রাস্তায় গিয়ে সহবাস আর অবিবাহিত হলে জনস্মমুখে মাস্টারবেশন করবেন না। তাই নয় কি?

এমনিতেই আমাদের দেশ শান্তি প্রিয়, দাঙ্গা বিরোধী, ধর্মীয় অনুশাসনের আওতাভুক্ত একটি দেশ।এখানে যে যার মতো চললেও বে আব্রু বা বেলেল্লাপনা করবার আগে মানুষ অন্তত একটা বার ভাবে।যতো স্মার্ট হোক আর কু কর্ম কিংবা কু চরিত্রেরই হোক যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে পাশ্চাত্যের মতো ভালোবাসার মানুষটির ঠোঁটে কিস্ পর্যন্ত করে না।আড়ালে যাচ্ছে তাই করুক।এট লিস্ট এইটুকু লজ্জাবোধ বাঙ্গালির এখনো আছে।আর সে দেশের টিভি চ্যানেলে যখন বাবা মায়ের সাথে বসে কোন প্রোগ্রাম দেখার সময় হঠাৎ কনডমের বিজ্ঞাপন দেখায়, আমার মনে হয় ধরনী তুই দিধা হ',আমি তলিয়ে যাই।

ঠিক আছে, আমি শিক্ষিতা, প্রাপ্ত বয়স্কা। হতে পারে আমি ম্যাচুর্ড, বিবাহিতা অথবা অবিবাহিতা।হতে পারে আমি মা অথবা দাদিও হয়ে গিয়েছি।নারী - পুরুষের আদিম মিলন আমিও বুঝি।কিন্তু তাই বলে ওই বিজ্ঞাপন চিত্রের দৃশ্যায়নে ২০/ ২৫ সেকেন্ডের কিংবা এক মিনিটের উত্তেজনাকর দৃশ্য তা সহ্য করা সব সময় পসিবল হয় না,মেনেও নেয়া যায় না।এর চেয়ে জন্ম নিয়ন্ত্রন বড়ির বিজ্ঞাপনেও মনে হয় এতোটা অশ্লীল দৃশ্যায়ন দেখানো হয় না।

যেখানে সারাদিন চেচাচ্ছি, স্যাটেলাইট,সহজলভ্য ইন্টারনেট সুবিধা সব কিছুতেই ধর্ষনে উঠতি বয়সি ছেলেদের উসকিয়ে দেয়ার মতো সাফিসিয়েন্ট এলিম্যান্ট থাকে।বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোর চেয়ে কম্পার্টিভলি বাংলাদেশের ইন্টারনেট যথেষ্ট সস্তা।যদি তা ভালো কাজে ব্যাবহৃত হয় তবে দেশ আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে সামনে এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই।কিন্তু, তার বদলে যুব সমাজ প্রতিনিয়ত যেদিকে ধাবিত হচ্ছে তার কুফল হিসেবে ব্যক্তিগত অবক্ষয় ছাড়া নারীদেরকে হতে হচ্ছে ইভটিজিং কিংবা এবিউজিং এর শিকার।এ ক্ষেত্রে আপনি কি বলবেন?

আমি মনে করি, যেখানে ভালো ভালো চ্যানেল বন্ধ হয়ে যাবার জন্য মানুষ ভূমিকা রাখতে পারে সেখানে এসব অপ্রীতিকর এবিউজিং সীন যা আমার কাছে আনসেন্সরড মনে হয় সেগুলো বন্ধ করে দেয়ার ক্ষেত্রে কি আমাদের জোরালো ভূমিকা থাকা উচিৎ নয়? যার দরকার সে দোকানে গেলে এমনিতেই চিনে নেবে অথবা দোকানী তাকে হেল্প করবে।আর বিজ্ঞাপন যদি দিতেই হয়, নারী পুরুষের সেক্সুয়াল মুভম্যান্ট অফ করে গ্রাফিক্স কিংবা লিখিত ভার্সন বিজ্ঞাপন হতে পারে ; যা চাইলেই যথেষ্ট ডায়নামিক করে তোলা যায়।

আমার বাসার সর্ব কনিষ্ঠ তিন বছরের শিশুটি যখন আমাকে প্রশ্ন করলো, "ওটা কি? কি দেখায়? ওরা অমন করে কেন? প্যাকেটে কি চকলেটে আছে?"
আমি তাকে উত্তর দিয়েছি, "ওটা চকলেট না, কাজের জিনিস।" প্রশ্ন করা তার স্বভাব।সে পালটা প্রশ্ন করেছিলো," কি কাজের জিনিস?" আমি তাকে থামানোর জন্য বলি,"ওটা বেলুন।"

এখন সে বায়না ধরে কাঁদতে থাকলো, " আমি ওই প্যাকেটের বেলুনটাই নিবো।অন্যটা নিবো না।"

আমি হতবাক হয়ে ওর মুখের দিকে তাকিয়ে রইলাম।এই দায় তবে কার?

 

ওয়াহিদা সুলতানা লাকি

ওয়াহিদা সুলতানা লাকি

লেখক: লেখক, ব্লগার ও এ্যাকটিভিস্ট

সম্পাদক

কাজী এম আনিছুল ইসলাম

ভারপ্রাপ্ত প্রকাশক

মোঃ আব্দুল হামিদ

আমাদের সাথে থাকুন
সদ্য সংবাদ