প্রশ্ন ফাঁস হবে না, মন্ত্রী সাহেব সব পরীক্ষা নিন ‘এসিএসডিইএম’ মডেলে

প্রকাশঃ শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৮    ১৭:৫০
15

প্রশ্ন ফাঁস, ফল ফাঁস এখন আমাদের গলায় ক্রমবর্ধমান একটা বিষ ফোঁড়া। একটা জাতিকে ধ্বংস করতে ও পিছনে ফেলার জন্যে তার মধ্যে দুটো জিনিস ছড়িয়ে দেওয়াই যতেষ্ঠ। প্রথমত জাতির মস্তিষ্ক মেধাশূণ্য করে দেওয়া, দ্বিতীয়ত প্রজন্মের হাতে মাদক ধরিয়ে দেওয়া। আজ দুটোরই প্রতিযোগিতা বেড়েছে আমাদের মধ্যে। প্রশ্নফাঁস প্রজন্মের মেধাকে যেমন ধ্বংস করছে, তেমনি মেধাহীন একটি বিশাল প্রজন্মের মুখোমুখি দাড়িয়ে গেছি আমরা।

এটা এখন কোন নিতান্ত মামুলি বিষয় নয়, এটা এখন জাতীয় সমস্যাও বটে। এভাবে চলতে থাকলে আগামীর বাংলাদেশ বহুমুখি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবে এটা নিশ্চিত। একটি চক্র তৈরি হয়েছে যারা প্রায় সব পরীক্ষারই প্রশ্ন ফাঁস করতে পারছে। এই চক্র মাথা থেকে পদ পর্যন্ত সুসংগঠিত ও শক্তিশালী একটি পরিবারে পরিণত হয়েছে। পদ কাটলে যেমন চলা যায় না, তেমনি মাথা কাটলে বাঁচাও যায় না। তাই পেক্ষাপট বলছে কোন ভাবেই এই চক্রকে শিকড়সহ নির্মূল করা সম্ভব নয়। 
 
প্রশ্ন ফাঁসের মাধ্যমে রাতারাতি কোটিপতি হয়েছে এই চক্রের অনেকে। তাই ওপেন না হলেও গোপনে এই চক্রটি বেশ শক্তিশালী, সঙ্গবদ্ধ ও যতেষ্ঠ প্রযুক্তি নির্ভর। পাবলিক পরীক্ষা কিংবা নিয়োগ পরীক্ষা এলেই এই চক্র শুরু করে প্রশ্ন ফাঁসের প্রতিযোগিতা। এখন প্রথম শ্রেণি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত পৌঁছে গেছে এই প্রতিযোগিতা। সুইপার নিয়োগ পরীক্ষা থেকে বিসিএস পরীক্ষা, সব জায়গায় এরা প্রশ্নফাঁসের যন্ত্র ফিট করে রেখেছে। 
প্রশ্ন ফাঁসের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সরল স্বীকারোক্তি জাতিকে শুধু হতাশই করেনি বরং শিক্ষামন্ত্রী হিসাবে তাঁর অযোগ্যতারই প্রমাণ দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেছেন, ‘শুধু এখন নয়, অতীতেও প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। আমি ৬২ সালে পরীক্ষা দিয়েছি তখনও প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে এখনও হচ্ছে। কিন্তু গণমাধ্যমের কারণে এখন ফোকাস হচ্ছে বেশি’। মন্ত্রীর কথা অনুযায়ী প্রশ্নফাঁস একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার পুনরাবৃত্তি মাত্র এবং শিক্ষামন্ত্রীও এই ফাঁস ঠেকাতে অসহায়। 

শিক্ষামন্ত্রীর অসহায়ত্ব প্রকাশ করার কারণ হলো প্রশ্ন ফাঁস চক্র এমন ভাবে গড়ে উঠেছে, যেখানে প্রশ্ন তৈরি হচ্ছে, যে প্রশ্ন ছাপাচ্ছেন, যে প্রশ্ন পাহারা দিচ্ছেন এবং যিনি পরীক্ষা নিচ্ছেন ও পরীক্ষা দিচ্ছেন সব জায়গায় এদের নিখুঁত যোগাযোগ আছে। প্রশ্ন ফাঁসের ফলে পরীক্ষার আগের রাতে মেধাবী শিক্ষার্থীরাই হয়ে যান সবচেয়ে বড় অসহায়। শুধু জিপিএ ৫ যেভাবে বাড়ছে, মেধার মান ঠিক সেভাবে বাড়েনি। আজ আমরা একটা প্রজন্মকে পেয়েছি, যারা সত্যিকার অর্থে বিশ্বাস করে পরীক্ষা মানেই প্রশ্ন ফাঁস। এবং তাই হচ্ছে। 

অস্থিরাত মোড় নেয়, তবে সর্বোচ্চটা হয়ে। কিন্তু সেই সবোর্চ্চটাও মনে হয় আর বাকি নাই। নাটোরে প্রথম শ্রেণির প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় ১০৬ স্কুলে পরীক্ষা স্থগিত (প্রথম আলো,১৯ ডিসেম্ভর) এবং চট্টগ্রামের নামকরা কলেজিয়েট স্কুলের ৫ম শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষার ফল কর্তৃপক্ষের ১ ঘন্টা আগে ফেসবুকে ফাঁস (বণিক বার্তা, ২৫ ডিসেম্ভর), অস্থিরতার সবোর্চ্চ পর্যায়কেও হার মানিয়েছে। আমাদেও মেজরিটি বাচ্চাদের নিউরণ এখন বিশ্বাস করে পরীক্ষা বলতে গোপনীয় কোন বিষয় নয়, বরং একটি উৎসব। আমরা এই উৎসব শুরু করি আগের রাতে প্রশ্ন  ফাঁসের মাধ্যমে। ঠিক এই মুহুর্তেই পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে আমাদের বিকল্প চিন্তা করা উচিত।

আজ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে ছাপাখানা থেকে। ছাপাখানা ছাড়াও বিভিন্ন ধাপে প্রশ্ন ফাঁসের প্রমাণ মিলেছে। আচ্ছা যদি আমরা প্রশ্নই না ছাপাই, তাহলে কেমন হবে? অন্তত ফাঁস হওয়ার সম্ভাবনা যেমন থাকবে না, তেমনি বাঁচবে বিপুল অংকের রাজস্ব। এতক্ষণে আপনিও চিন্তায় পড়ে গেলেন, প্রশ্ন ছাড়া পরীক্ষা হবে কিভাবে?   

দীর্ঘদিন চিন্তা ভাবনা করে প্রশ্ন ছাড়া পরীক্ষা নেওয়ার একটি মডেল দাঁড় করিয়েছি আমি। ছাপাখানায় প্রশ্ন না ছাপিয়ে এই মডেলের মাধ্যমে শতভাগ শুদ্ধভাবে যেকোন পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব। আমি আশা করছি আমার মডেলটি যদি সঠিক ভাবে ব্যবহার করা যায়, তাহলে একবিংশ শতাব্দির বাংলাদেশের শিক্ষাখাত হবে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় অত্যাধুনিক একটি পরিক্রমা। আমি এই মডেলের নাম দিয়েছি ‘এসিএসডিইএম’ মডেল। 

‘এসিএসডিইএম’ মডেলে এর পূর্ণরুপ হলো আরিফ চৌধুরী শুভ ডিজিটাল এক্সাম মডেল। ‘এসিএসডিইএম’ মডেলে রয়েছে ৬টি গুরুত্বর্পূণ ধাপ। ধাপগুলো হলো চাহিদা কমিশন, পরীক্ষা কমিশন, ফলাফল কমিশন, নিয়োগ কমিশন, অভিযোগ কমিশন এবং তদারকি ও একশান কমিশন। এই ৬টি ধাপ নিয়ে গঠিত হবে একটি পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল শিক্ষা কমিশন বা ডিইসি। এই কমিশনই বাস্তবায়ন করবে এই ধাপগুলোর কাজ।

১.চাহিদা কমিশন

চাহিদা কমিশন হলো ‘এসিএসডিইএম’ মডেলের প্রথম ধাপ। সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে এখন পরীক্ষা ছাড়া সরাসরি নিয়োগ তেমন একটা নাই। এ কমিশনের কাছে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর গেজেট অনুযায়ী মোট জনবল, ঘাটতি জনবল এবং চাহিদা জনবল রেকড থাকবে। প্রতিষ্ঠানসমূহের চাহিদা অনুযায়ী নিয়োগ কমিশন বিজ্ঞপ্তি প্রদান করবে এবং আবেদন যাচাই বাচাই করে পরীক্ষার জন্যে সুপারিশ করবে পরীক্ষা কমিশনের নিকট। একটি চারকুলার দেওয়ার সবোর্চ্চ ৩০ দিনের মধ্যে পরীক্ষার সুপারিশ করতে হবে এই কমিশনকে। 

২. পরীক্ষা কমিশন  

এটি ‘এসিএসডিইএম’ মডেলের দ্বিতীয় ধাপ। এই ধাপটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপ। এই ধাপের সুষ্ঠ বাস্তবায়নই পুরো মডেলের সাফল্য। এই ধাপটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং নিয়োগ এই ক্যাটাগরিগুলো আলাদা করে কাজ করবে। পরীক্ষা কমিশনের কাজ শেষ হবে নিচের তিনটি ধাপে।  

ডিজিটাল পরীক্ষা কক্ষ প্রস্তুত: ডিজিটাল পরীক্ষা কক্ষের জন্যে স্থান নির্বাচন গুরুত্বর্পূণ একটি কাজ। কক্ষটি যত বড় হবে ততই সুবিধা। ছোট ছোট কক্ষ হলে ব্যায় বাড়বে কিন্তু অসুবিধে নাই। বড় মাঠ, উদ্যান, হলরুম প্রশস্ত রাস্তাও হতে পারে একটি ডিজিটাল পরীক্ষা কক্ষের উত্তম স্থান। নির্বাচিত স্থান বা কক্ষে নির্দিষ্ট দূরত্ব পর পর বসানো হবে অস্থায়ী বড় আকারের ডিজিটাল কোর্ডযুক্ত বিশেষ মনিটর। মনিটরগুলো পরিচালিত হবে একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে। মূলত এই মনিটরগুলোই হবে শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল প্রশ্নপত্র। পরীক্ষার্থী যেন সুবিধামত পরীক্ষা দিতে পাওে, সেভাবে ডিজিটাল মনিটর বসানো এবং প্রশ্ন ডেলিভারি দেওয়া হবে কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে। সময় শেষ হওয়া মাত্রই মনিটর থেকে প্রশ্ন মুছে যাবে। এরপর উত্তরপত্র সংগ্রহের কাজ করবে পরীক্ষক। পরীক্ষা শেষে মূল প্রশ্নপত্রটি কমিশনের ওয়েবসাইটে দেখা যাবে। এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তরপত্রও দেওয়া হবে। উত্তীর্ণ প্রার্থীরা এই ওয়েবসাইটেই পরীক্ষার নম্বরসহ তাদের মেধাতালিকা দেখতে পাবে। প্রয়োজনীয় সারঞ্জম প্রস্তুত থাকলে পরীক্ষা কক্ষটি ২দিনেই প্রস্তুত করা সম্ভব।

প্রশ্ন প্রনয়নের জন্যে পরীক্ষক নির্বাচন পদ্ধতি: বিষয় ভিত্তিক পরীক্ষা বিবেচনা করে ১০০ জন প্রাথমিক প্রশ্নকর্তা এবং ৫জন ফাইনাল প্রশ্নকর্তা নির্বাচন করা হবে। অত্যন্ত গোপনীয়তার সাথে একই দিনে একই জায়গায় বসে ১০০টি প্রশ্ন তৈরি করবে প্রাথমিক প্রশ্নকর্তারা। এর জন্যে তাদের সময় দেওয়া হবে সর্বোচ্চ ১দিন। ৫জন ফাইনাল পরীক্ষ ১০০টি প্রশ্ন থেকে ৫ সেট প্রশ্ন প্রস্তুত করবে চূড়ান্ত পরীক্ষার জন্যে। এ কাজে তাদের সময় দেওয়া হবে সর্বোচ্চ ৫দিন। ৬ষ্ঠ দিনের মাথায় চূড়ান্ত প্রশ্নে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। চূড়ান্ত প্রশ্ন তৈরির পর পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত অত্যন্ত গোপনীয়তায় কন্টোল টাওয়ারে অবস্থান করবে এই ৫জন পরীক্ষক। পরীক্ষার দিন আইটি সহায়তা দেওয়ার জন্যে একজন আইটি স্পেশালিষ্ট তাদের সাথে যুক্ত হবেন পরীক্ষা শুরুর একঘন্টা আগে। 

প্রশ্ন ডেলিভারি পদ্ধতি: এই ধাপটি ডিজিটাল এক্সাম মডেলের সাফল্য ধাপ। চূড়ান্ত প্রশ্ন প্রস্তুতকারি ৫জন পরীক্ষক পরীক্ষা শুরুর আধাঘন্টা আগে সিদ্ধান্ত নিবেন কোন সেটে পরীক্ষা নিবেন। চাইলে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ৫টি সেটির ৫টি আলাদা আলাদা অংশ ডেলিভারি দিয়ে এক সেট প্রশ্ন তৈরি হতে পারে। আইটি স্পেশালিস্ট বাটন চাপার সাথে সাথে সারাদেশের সব পরীক্ষা কেন্দ্রের সমস্ত মনিটরগুলোতে প্রশ্ন দেখা যাবে। শুরু হবে পরীক্ষা। পরীক্ষা শেষে খাতাগুলো প্রেরণ করা হবে ফলাফল কমিশনের নিকট। পুরো প্রক্রিয়াটি একটি টেলিভিশন চ্যানেলের মতো সম্প্রসারিত হবে। এভাবেই শেষ হবে নকল মুক্ত ডিজিটাল এক্সাম পদ্ধতি। এই প্রক্রিয়ায় রংপুরে বসেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা বুয়েটের পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব। পুরো প্রক্রিয়াটি শেষ হবে মাত্র ৩৬ দিনের মধ্যে।

৩. ফলাফল কমিশন

এই কমিশনের কাজ হলো খাতা মূল্যায়ন করে পরীক্ষার ফলাফল কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা। প্রাথমিক প্রশ্ন প্রস্তুতকারী ১০০জন প্রশ্নকর্তা খাতা মূল্যায়নের জন্যে সারাদেশ থেকে একটি টিম গঠন করবেন। এই ১০০ জনকে মনিটরিং করবেন চূড়ান্ত প্রশ্ন প্রস্তুতকারী ৫জন পরীক্ষক। এই প্রক্রিয়ায় ফলাফল ওয়েবসাইটে দেওয়া পর্যন্ত এই কমিশন সময় পাবে সবোর্চ্চ ৭দিন। ফলাফল রিভিউ করার  জন্যে শিক্ষার্থীদের সময় দেওয়া হবে ১দিন। রিভিউর ফলাফলের জন্যে কমিশন সময় পাবে সবোর্চ্চ ২দিন। অর্থাৎ পরীক্ষা শেষ হবার সর্বোচ্চ ১০ দিনের মাথায় একজন পরীক্ষার্থী কমিশনের ওয়েবসাইটে তার ফলাফল দেখতে পাবে।  ১২তম দিনে ফলাফল কমিশন চূড়ান্ত প্রার্থীদের একটি তালিকা পাঠাবেন নিয়োগ ও বাস্তবায়ন কমিশনের নিকট।  

৪.নিয়োগ কমিশন

এই কমিশনের কাজ হচ্ছে ২টি। প্রথমটি হলো ফলাফল কমিশনের সুপারিশকে বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী স্বস্ব প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দেওয়া।  সেই সাথে প্রার্থীর দক্ষতা ও মানউন্নয়নের জন্যে নিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠানকে প্রয়োজনীয় আদেশ দেওয়া। দ্বিতীয়টি হলো প্রার্থীকে নিয়োগ দেওয়ার পরে অত্র প্রতিষ্ঠান বিজ্ঞপ্তির শর্ত পূরণ করছে কি না, সেটি তদারকি করা। কোন প্রার্থী কিংবা কোন প্রতিষ্ঠান কমিশনের কাছে তথ্যগেপান করলে তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সংবিধান অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থ নেওয়ার জন্যে অভিযোগ কমিশনকে সুপারিশ করবে নিয়োগ কমিশন। দুঘটনাজনিত কারণে প্রতিষ্ঠানের শর্ত অনুযায়ী নিয়োগকৃতের ক্ষতিপূরণ আদায়ে এ কমিশন বদ্ধপরিকর। ফলাফল কমিশনের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার সর্বোচ্চ ৭দিনের মধ্যে উর্ত্তীণ প্রার্থীর নিয়োগ বাস্তবায়ন করতে হবে এ কমিশনকে। 
৫.অভিযোগ কমিশন

এই কমিশনটি সারাদেশের শিক্ষা সংক্রান্ত সমস্ত অভিযোগ গ্রহণ করবে। এই কমিশনের কাজ হচ্ছে অভিযোগ যাচাই বাচাই করে বাস্তবায়ন করার জন্যে একশান কমিশনে সুপারিশ করা। শিক্ষক সমস্যা, পরীক্ষাগত সমস্যা, ফলাফল সমস্যা, নিয়োগ সমস্যা, চাহিদা সমস্যা, অনিয়ম সমস্যা, দক্ষতা সমস্যা, ডিজিটালাইজেশন সমস্যা, অবৈধ নিয়োগ, শিক্ষক সংকট, বেতনভাতা সমস্যা, রাস্তা অবরোধ, মানববন্ধন ও ইত্যাদি নিয়ে এই কমিশন কাজ করবে। এই কমিশন সর্বোচ্চ ৩০ দিনের মধ্যে উত্থাপিত সমস্যার সমাধান করতে হবে। 

৬. একশান কমিশন

এই কমিশনের কাজ হচ্ছে অভিযোগ কমিশনের সুপারিতকে বাস্তবায়ন করা। এক্ষেত্রে এ কমিশন আইন আদালত থেকে শুরু করে প্রশাসনের সব স্তরকে কাজে লাগিয়ে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তি নিশ্চিত করবে। তবে কেউ যদি মিথ্যা সাক্ষি দিয়ে নিজস্ব স্বার্থে কাউকে শাস্তি প্রদানের জন্যে উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে কমিশনকে বাধ্য করে এবং এটি প্রমাণিত হয়, তাহলে কমিশন অভিযোগকারীকে সমশান্তি প্রদান করিতে পারবে। অভিযোগ কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্যে এই কমিশন সময় পাবে সবোর্চ্চ ৩ দিন।

এই কমিশন হবে সর্বোচ্চ ক্ষমতাশীল। এই কমিশনের হাতে সারাদেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লাইন্সে প্রদান এবং বাতিলের এখতিয়ার থাকবে। এ ক্ষেত্রে অভিযোগ এবং একশন কমিশন একত্রিত হয়ে কাজ করবে। সেরা ফলাফলের জন্যে জন্যে এওয়ার্ড প্রদান এবং খারাপ ফলাফলের জন্যে এমপিও বাতিলের ক্ষমতা থাকবে এই কমিশনের হাতে। 

এভাবেই এই ৬টি ধাপের সম্পুন্ন বাস্তবায়নের ফলে গঠিত হবে একটি পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা কমিশন।‘এসিএসডিইএম’ মডেলের মাধ্যমে দেশের সমস্ত বেসরকারি খাতগুলোকেও স্বচ্চ ভাবে সেবা দেওয়া সম্ভব। সারাবছর একটি নিদ্দিষ্ট সময়ে চারকুলার দিয়ে পরীক্ষার ব্যবস্থা করে নিয়োগ প্রদানের মাধ্যমে যেমন কমবে হয়রানি তেমনি বাঁচবে সময় ও কোটি কোটি টাকা রাজস্ব।