{{theTime}} |   Fri 19 Jan 2018

অজ্ঞাতপরিচয়ে সালমানের শুটিং সেটে আগ্নেয়াস্ত্রওসহ বেশ কয়েকজন

প্রকাশঃ শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৮    ২০:৪১
অজ্ঞাতপরিচয়ে সালমানের শুটিং সেটে আগ্নেয়াস্ত্রওসহ বেশ কয়েকজন
অজ্ঞাতপরিচয়ে সালমানের শুটিং সেটে আগ্নেয়াস্ত্রওসহ বেশ কয়েকজন
অনলাইন ডেস্ক নিউজ

মঙ্গলবার মুম্বইয়ের ‘ফিল্ম সিটি’তে সকাল থেকেই সালমান খান শুটিং করছিলেন পরবর্তী ছবি ‘রেস-৩’র।শুটিং চলাকালীনই সালমানের নিরাপত্তাকর্মীরা সন্ধান পান, বেশ কয়েকজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি শুটিং সেটের মধ্যে ঢুকে পড়েছে। তাদের কাছে নাকি আগ্নেয়াস্ত্রও রয়েছে ।

 ‘রেস-৩’ সিনেমার শ্যুটিং চলাকালীন কয়েকজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি সেটের মধ্যে ঢুকে পড়ার খবর পেয়ে পুলিশ সালমান খানের শ্যুটিং বন্ধ করে তাকে নিরাপদে বাসায় পৌঁছে দিয়েছে।মুম্বাই মিরর জানায়, খবর পেয়েই শ্যুটিংস্পটে পৌঁছায় পুলিশ। সালমান এবং ‘রেস-৩’র প্রযোজক রমেশ তৌরানীকে শিগ্গির শ্যুটিং বন্ধের নির্দেশ দেন ।এরপর ছয়জন পুলিশকর্মী অতিদ্রুত সালমানকে তার বান্দ্রার বাসায় পৌঁছে দেয়।

এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা বলেছেন,“সালমানকে খুনের হুমকিকে আমরা গুরুত্ব দিয়ে দেখছি । তার সুরক্ষাব্যবস্থা আরো বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে । পাশাপাশি বিষ্ণোইয়ের হুমকির বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।”গত ৪জানুয়ারি পাঞ্জাবের কুখ্যাত অপরাধী লরেন্স বিষ্ণোই যোধপুরের আদালত চত্বরেই সালমানকে প্রাণে মারার হুমকি দেয় ।

তবে সেটে পুলিশ পৌঁছনোর পর সেই অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তিদের কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যেও শুটিং সেটে তারা কীভাবে ঢুকল এবং পরে কোথায় তারা গা ঢাকা দিল সেই বিষয়েও পুলিশ নিশ্চিত করে কিছু জানায়নি।নিরাপত্তারক্ষী ছাড়া সালমানকে সাইকেলে করে যত্রতত্র ঘুরে বেড়াতে নিষেধ করা হয়েছে । তার অবস্থান নিয়েও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু না জানাতে অনুরোধ করেছে পুলিশ ।

আদালতের শুনানি শেষে বেরোনোর সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন,“এই যোধপুরেই সালমানকে প্রাণে মেরে ফেলা হবে । তখন সে জানবে আমাদের আসল পরিচয়।”ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানায়, সালমানের বাবা সেলিম খান বলেছেন,“আমি সঠিক জানিনা শ্যুটিংস্পটে কী হয়েছিল । তাকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে ।

তবে সালমানের ব্যক্তিগত ভালো একটি নিরাপত্তারক্ষীর টিম আছে । এর আগেও সে এরকম হুমকি পেয়েছে । এই ইন্ডাস্ট্রিতে এরকম হুমকি অনেকেই পায় ।”আগামী দু’দিন ‘রেস ৩’র নায়িকা জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের সঙ্গে একটি নাচের দৃশ্যে শুটিং করার কথা ছিল সলমনের। পুলিশ শ্যুটিং বন্ধের অনুরোধ করেছে ।

পুলিশের অনুমান, সালমানের সঙ্গে লরেন্সের বিরোধের সূত্রপাত ১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে।রাজস্থানের বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মানুষ কৃষ্ণসার হরিণকে পূজা করে। এর সঙ্গে তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগ জড়িয়ে রয়েছে।সেইকারণেই এই হুমকি এবং পরবর্তীতে শুটিং সেটে হামলার চেষ্টা।

 

add.jpg
add.jpg

সম্পাদক

কাজী এম আনিছুল ইসলাম

ভারপ্রাপ্ত প্রকাশক

মোঃ আব্দুল হামিদ

আমাদের সাথে থাকুন
সদ্য সংবাদ